October 22, 2021, 10:29 am

Notice :
ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে ** ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে **ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে ** ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে **ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে ** ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে **
News Headline :
তিন মাসের এমপিও হারালেন আরও ১৪ প্রতিষ্ঠান প্রধান, হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার ডা. ইলিয়াছ একাডেমির ১টি বর্বরতা ॥ লুকড়া গ্রামের ৩০টি পরিবার ৫ মাস ধরে সমাজচ্যুত হবিগঞ্জের ২ ব্যক্তি ১৮৫ কেজি গাঁজাসহ র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হবিগঞ্জে ডাবল ভাড়ায় দ্বিগুন যাত্রী নিয়ে চলছে গাড়ী জেলায় শনাক্ত ছাড়াল ৫ হাজার নতুন শনাক্ত ১৫৩ জন হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের সাবেক ওসি মানিকুলের বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে মাদ্রাসার স্বার্থ পরিপন্থী কাজ, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ লাখাইয়ে স্ত্রীকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে সাবেক বিচারপতি চুনারুঘাটের আব্দুল হাই আর নেই দারুল হুদা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এডভোকেট রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ
লাখাইয়ে স্ত্রীকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

লাখাইয়ে স্ত্রীকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

লাখাই প্রতিনিধি ঃ লাখাই উপজেলার বণিকপাড়া গ্রামে স্ত্রী অঞ্জনা রানী সূত্রধরকে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে ঘাতক স্বামী নিতেশ বণিক। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জবানবন্দি প্রদান শেষে স্বামী নিতেশ বণিককে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয় হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন লাখাই থানার (ওসি) তদন্ত মোঃ মহিউদ্দিন। এর পুর্বে অঞ্জনা রানী সূত্রধরের ভাই সমীর সূত্রধর বাদী হয়ে লাখাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এতে একমাত্র আসামী করা হয় স্বামী নিতেশ বণিককে। মামলায় উল্লেখ করা হয়, অঞ্জনার সাথে তার স্বামী নিতেশ বণিকের মনোমালিন্য ছিল। নিতেশ মাদক সেবন করতেন। ঘটনার দিন তিনি মাদক সেবন করে বাড়ি ফিরলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। ঝগড়ার সময় অঞ্জনা নিতেশ কে মারধরের চেষ্টা করেন। তখন নিতেশ ক্ষিপ্ত হয়ে গলায় মাফলার পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে অঞ্জনাকে হত্যা করেন। পরে সেটিকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্ঠা করে নিতেশ ও তার পরিবারের লোকজন। হবিগঞ্জের কোর্ট ইন্সপেক্টর জিয়াউর রহমান জানান, জবানবন্দি রেকর্ডের পর আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। নিহত অঞ্জনা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ধরমন্ডল গ্রামের মৃত বিজয় বণিকের মেয়ে। নিতেশ বণিক লাখাই উপজেলার বণিকপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। গত (১৭ জানুয়ারি) নিতেশের বসতঘরে অঞ্জনার রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। লাখাইয়ে স্বামী ও বাসুরের অমানষিক নির্যাতনে এক সন্তানের জননীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক স্বামীকে আটক করেছে। গত বুধবার সকালে লাখাই থানা পুলিশ নিহত অঞ্জনা রাণী সূত্রধর’র (২৮) লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। স্থানীয়রা জানান, উপজেলার মুড়াকড়ি গ্রামের মৃত হরিচরন বণিকের ছেলে নিতেশ বণিক ৩ বছর আগে বিয়ে করে পার্শ্ববর্তী নাসিরনগর উপজেলার ধরম-ল গ্রামের শ্রী হরি সূত্রধরের কন্যা অঞ্জনা রাণী সূত্রধরকে। বিয়ের পর তাদের কোলজুড়ে একটি ছেলে সন্তান জন্ম নেয়। যার নাম নিতেন্দ্র বণিক (১)। নিহতের বাবার বাড়ির লোকজনের অভিযোগ, সম্প্রতি পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কলহের সৃষ্টি হয়। প্রায়ই তার স্বামী ও তার বড় ভাই বিকাশ বণিক অঞ্জনাকে কারণে অকারণে নির্যাতন করতো। বিষয়গুলো ফোনে তার ভাই সুজিত সূত্রধরকে জানাতো। গত মঙ্গলবার রাতে অঞ্জনাকে স্বামী ও ভাসুর অমানসিক নির্যাতন করে। বিষয়টি ফোনে ভাইকে জানায়। এরপর থেকেই তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। গভীর রাতে খবর পাওয়া যায় অঞ্জনা মারা গেছে। পরে লাখাই থানাকে বিষয়টি অবগত করলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এসআই আব্দুল মন্নান লাশের সুরতহাল তৈরি করে মর্গে প্রেরণ করেন। ঘটনার পর থেকে ভাসুরসহ পরিবারের অন্যান্য লোক আত্মগোপন করে তবে সকালেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে নিতেশ বণিককে আটক করেছে। লাখাই থানার ওসি (তদন্ত) জানান, কেউ এখনো মামলা করেনি। আটক স্বামী নিতেশকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এ ছাড়া লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পোষ্ট মর্টেম রিপোর্ট এলে মৃত্যুর কারণ আরও নিশ্চিত হওয়া যাবে। মামলা দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020
Design & Developed BY Rapid ICT