June 16, 2021, 3:37 pm

Notice :
ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে ** ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে **ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে ** ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে **ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে ** ওয়েবসাইটের কাজ চলিতেছে **
News Headline :
দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে মাদ্রাসার স্বার্থ পরিপন্থী কাজ, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ লাখাইয়ে স্ত্রীকে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে সাবেক বিচারপতি চুনারুঘাটের আব্দুল হাই আর নেই দারুল হুদা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এডভোকেট রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ দারুল হুদা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার অনিয়ম দুর্নীতি, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রহমতে এলাহীর অনিয়মের বিরুদ্ধে চার গ্রামবাসীর প্রতিবাদ সমাবেশ মাধবপুরে সনদ বাতিলের ভয় দেখিয়ে মুক্তিযোদ্ধার ভাতা আত্মসাত ॥ অভিযোগ দেয়ায় ৪ লাখ টাকায় রফাদফা এমসি কলেজে ধর্ষণ: অভিযোগপত্র আমলে নিল আদালত আদালত প্রাঙ্গণে নিজ বুকে ছুরিকাঘাত করে স্বামীর আত্মহত্যার ঘটনায় ॥ কাগাউড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সেলিমসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা ॥ সেলিম বুশরার পরকিয়ায় সর্বত্র তোলপাড় শায়েস্তাগঞ্জ পৌর নির্বাচনে ত্রিমূখি লড়াইয়ের আভাস ॥ আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাসুদুজ্জামান, বিএনপি প্রার্থী অলিউর ও বর্তমান মেয়র ছালেক মিয়ার মধ্যেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছেন পৌরবাসী শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশকে বৃদ্ধাংগুলী প্রদর্শন করে সেশন ফি আদায়ের অভিযোগ, প্রিন্সিপাল ফারুক মিয়ার দুর্নীতি চরমে, সদ্য এমপিওভুক্ত মাদ্রাসায় নিয়োগ বানিজ্য-১৪
দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে মাদ্রাসার স্বার্থ পরিপন্থী কাজ, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে মাদ্রাসার স্বার্থ পরিপন্থী কাজ, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ঃ হবিগঞ্জ সদর উপজেলাধীন ‘‘দারুল হুদা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার (ঊওওঘ ঘঙ. ১২৯৪৪৬) (মেয়াদোর্ত্তীন) ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এডভোকেট রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে সীমাহীন দুর্নীতির অভিযোগ প্রিন্ট মিডিয়া, পত্রিকা, টিভি চ্যানেলে প্রচারিত হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে মাদ্রাসার স্বার্থ পরিপন্থী কাজ অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে। ২০০৩ সালে স্থাপিত দারুল হুদা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপার মাওলানা মোঃ ঈমান আলী কর্মরত থাকা অবস্থায় ০২ (দুই) বার হার্ট এ্যাটাক পরবর্তী দীর্ঘ চিকিৎসার পর ২০১৮ সালে ‘‘অপেন হার্ট বাইপাস সার্জারী’’ অপারেশন পরবর্তী ডাক্তারী পরামর্শে বিশ্রামে থাকা অবস্তায় মাদ্রাসায় (২এর পাতায়) অনুপস্তিতি কালীন সময়টাকে এডভোকেট রহমতে এলাহী নিজের অনুগত ও পছন্দ লোকদের নিয়ে বিধি-বহির্ভূতভাবে গায়ের জোরে চাতুর্য্যতার সাথে কমিটি গঠন করে সভাপতির আসন লাভ করেন। এডভোকেট রহমতে এলাহী তার আপন বড় ভাই মোঃ আইয়ুব আলী যিনি উক্ত মাদ্রাসার জুনিয়র শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ প্রাপ্ত ও এমপি ও ভক্ত ইনডেক্স নং (গ০০০৭৫৫৬) যার সর্বোচ্চ অর্জিত ডিগ্রি (১৯৮১ সালে তৃতীয় বিভাগ প্রাপ্ত আলিম পাস/ঐ.ঝ.ঈ সমমান) সুযোগ সন্ধানী এডভোকেট রহমতে এলাহী হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে তার ভাই জুনিয়র শিক্ষক (আলিম পাস/ঐ.ঝ.ঈ সমমান) আইয়ুব আলীকে প্রতিষ্ঠানের সহকারী শিক্ষক পরিচয় করিয়ে বিধি-বহির্ভূত ভাবে ভারপ্রাপ্ত সুপার পদবীযুক্ত সীল স্বাক্ষর অপ-ব্যবহার করার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ করা আবশ্যক যে, অত্র মাদ্রাসায় বিএড ডিগ্রিধারী সিনিয়র শিক্ষক একাধিক সহকারী শিক্ষক এমপিও ভুক্ত থাকার পরও উদ্দেশ্যমুলক ও রহস্যজনক কারণে জুনিয়র মৌলভীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। দৃশ্যমান বিষয় হল যে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রধানের ছুটি/অনুপস্থিতি/অসুস্থতার কারণে যিনি ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব পালন করেন তিনি প্রতিষ্ঠান প্রধানের নির্ধারিত চেয়ারটি সম্মানের পাশের্^ রেখে অন্য আরেকটি চেয়ারে বসেন। যা শিক্ষক সমাজ, প্রতিষ্ঠানের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে এবং ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে অনুকরণীয় অনুসরনীয় টনিক হিসাবে কাজ করে। কিন্তু দারুল হুদা মাদ্রাসার জুনিয়র শিক্ষক মোঃ আইয়ুব আলী যিনি এডভোকেট রহমতে এলাহীর আপন ভাই হওয়ার কারণে সুপারের নির্ধারিত চেয়ারে আয়েশীভাবে সময় পার করছেন। বিষয়টি ‘‘একাডেমিক রুলস অব ডিজঅনার এ্যাক্ট’ অন্তর্ভুক্ত কিনা শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিভাগ দেখবেন বলে অভিভাবক মহল আশা করছেন। উক্ত মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষে বিধি মোতাবেক এডহক কমিটির গঠনের জন্য বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক গত ডিসেম্বর মাসে চিঠি দিলেও গত ১৪ ফেব্র“য়ারী অভিভাবক সদস্য মনোনয়নের জন্য সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর মনগড়া ছাত্র-ছাত্রীর নামসহ নিজ পরিবারের ২ জন আর একজন ভুয়া ছাত্র-ছাত্রীর নামসহ তিন জন অভিভাবকের নাম জমা দেওয়া হয়েছে বলে সুত্রে জানা গেছে। যাতে করে এডভোকেট রহমতে এলাহী সভাপতির পদে না থাকতে পারলেও কমপক্ষে সাধারণ সদস্য পদে থাকার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছেন। মাদ্রাসা থেকে ৮/১০ কি.মি দূরে হবিগঞ্জ শহরে পরিবারসহ স্থায়ীভাবে বসবাস করা সত্বেও নিজের মেয়েকে নতুন ভর্তি হয়েছে দেখিয়ে অভিভাবক পদ বহালের চেষ্ঠা করছেন। উল্লেখ্য-২০০৩ সালে স্থাপিত দারুল হুদা দাখিল মাদ্রাসায় কখনও এডভোকেট রহমতে এলাহীর কোন সন্তান ভর্তি নেই/পড়ালেখা করেননি। এদিকে এডভোকেট রহমতে এলাহীর আপন ভাতিজা আবু বকর সিদ্দিক বানিয়াচুং উপজেলার ইকরাম উচ্চ বিদ্যালয়ে এমপিও ভুক্ত ধর্মীয় শিক্ষক হিসাবে কর্মরত থাকা সত্তেও উক্ত দারুল হুদা দাখিল মাদরাসার (গঊগওঝ চধংংড়িৎফ) পাসওয়ার্ড যা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের রক্ষাকবচ ও অতি গোপনীয় এবং প্রতিষ্ঠান প্রধানের জন্য সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। আবু বকর সিদ্দিকের ব্যক্তিগত মোবাইল নং-০১৭২৫-০৪২৫৩৮) এ বেআইনী ভাবে রেখে মাদ্রাসার (গঊগওঝ চধংংড়িৎফ) ব্যবহার করছে যা সম্পূর্ণ বেআইনী। একমাত্র এডভোকেট রহমত এলাহীর আপন ভাতিজা হওয়ার কারণেই বেআইনী অপব ্যবহার করে চলছেন অভিযোগ রয়েছে। মাদ্রাসায় কর্মরত একজন শিক্ষক প্রাতিষ্ঠানিক প্রয়োজনে মাদ্রাসার (গঊগওঝ চধংংড়িৎফ) আবু বকর সিদ্দিকের কাছে চাইলে উত্তরে সে বলে উকিল চাচা (এডভোকেট রহমত এলাহী) নিষেধ করেছেন যাতে মাদ্রাসার কাউকে (গঊগওঝ চধংংড়িৎফ) দেওয়া যাবে না যা দেখার আমি দেখবো। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আইনগত ভাবে তলিয়ে দেখবেন বলে এলাকাবাসী আশা করছেন। তাছাড়া এলাকার সহজ সরল ধর্মপ্রান মাদ্রাসা প্রিয় অভিভাবকদের কাছ থেকে মাদ্রাসার উন্নয়নে সভা হবে/হয়েছে বলে সাদা কাগজে স্বাক্ষর গ্রহন করেন। পরবর্তীতে প্রতিষ্ঠাতা স্বাক্ষরিত কাগজ মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপার মোঃ ঈমান আলী এর বিরুদ্ধে তার চাচা এডভোকেট রহমতে এলাহীর কথামতো মিথ্যা অভিযোগ পত্রের সাথে সংযুক্ত করে জমা দিয়েছে বলে প্রমান পাওয়া গেছে। এডভোকেট রহমতে এলাহী নতুন এমপিও ভুক্ত মাদ্রাসার ০৬ জন শিক্ষক কর্মচারীদের কাছ থেকে অফিস খরচ (ঘুষ) দেখিয়ে এককালীন পাঁচলক্ষ টাকা আদায়, মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে বিনা রশিদে আদায়ক মাসিক বেতন, পরীক্ষা ফি, সেশন ফি, রেজিষ্টেধশন ফি, বোর্ড ফরম ফিলাপ ফি, উন্নয়ন ফিসহ সার্বিক আয়ের টাকা মাদ্রাসার একাউন্টে জমা না দিয়ে ইচ্ছামত খরচ করা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। মাদ্রাসার ক্যাম্পাসে মসজিদ নির্মানে এলাকাবাসী, প্রবাসী, লন্ডনীদের অনুদানের লক্ষ লক্ষ টাকার হিসাব না পাওয়ায় উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ, সিলেট বরাবর অভিযোগ পত্র দাখিল করা আছে এডভোকেট রহমতে এলাহীর বিরুদ্ধে। মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপার মাওলানা মো: ঈমান আলী সুদীর্ঘ ১৭/১৮ বছর কঠোর পরিশ্রম আর সর্বোচচ ত্যাগ স্বীকার করে প্রতিষ্ঠানটি এমপিও ভুক্ত হয়েছে গত বছর। হবিগঞ্জ জেলার শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ রুহুল্লাহ মাদ্রাসার স্বার্থে স্ব-উদ্যোগে নিজ অফিসে গত বছর ২৩/০৫/২০২০ইং তারিখ পবিত্র রমজান মাসে প্রচন্ড গরমের দিনে রোজারত অবস্থায় বিস্তারিত আলোচনা পর্যালোচনার পর সর্বসম্মতিক্রমে হবিগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, মাদ্রাসা ম্যানেজিং কমিটির সদস্য, এলাকার বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষকগনের উপস্থিতিতে সভাপতি এডভোকেট রহমতে এলাহী ও মাদ্রাসার সুপারের মধ্যকার সমস্যা নিরসন হওয়ার পর মাদ্রাসার সংশ্লিষ্ট সকলের অজ্ঞাতসারে প্রতিষ্ঠাতা সুপার মোঃ ঈমান আলীর বিরুদ্ধে সভাপতি এডভোকেট রহমতে এলাহী ডিডি অফিস, সিলেট বরাবর এক মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক অভিযোগ পত্র দাখিল করেন। অথচ ২৬/০৫/২০২০ইং তারিখ সভাপতি এডভোকেট রহমতে এলাহী মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপার মোঃ ঈমান আলীর এমপিও আবেদন পত্র সহ বিধি মোতাবেক ৩০০/- টাকার স্টাম্পে স্বাক্ষর করেন। মাত্র ১৫/১৬ দিন পরেই সকলের অজান্তে ডিডি অফিসে মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক অভিযোগ পত্র দাখিল করে সুপারের এমপিও আবেদন ফাইলটি জবলবপঃ করানো হয়। উল্লেখ্য এডভোকেট রহমতে এলাহী কর্তৃক দাখিলকৃত মিথ্যা অভিযোগ পত্রে মাদ্রাসার কোন শিক্ষক কর্মচারীর স্বাক্ষর নেই। তাছাড়া মিথ্যা অভিযোগ দীর্ঘ তদন্তের পর দাখিলকৃত তদন্ত প্রতিবেদন প্রায় ০৬(ছয়) মাস আগে জমা হলেও তা গোপন রেখে মাদ্রাসার সুপারকে বেআইনীভাবে মাদ্রাসায় যেতে বাধা দেওয়া, হুমকি প্রদান, মিথ্যা মামলায় আসামী করে বাকী জীবন জেলে কাটানোর ব্যবস্থা করা হবে মর্মে জনসম্মুখে ঘোষনা দিয়েছেন এডভোকেট রহমতে এলাহী। জানা গেছে, এডভোকেট রহমতে এলাহীর আপন বড় ভাই মোঃ আইয়ুব আলী বাদী হয়ে মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সুপারের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা জিডি করেছেন। সভাপতি ও জুনিয়র শিক্ষক আইয়ুব আলী মিলেমিশে ষড়যন্ত্র ও হুমকির মুখে আতঙ্গগ্রস্থ অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন প্রতিষ্ঠাতা সুপার মাওলানা মোঃ ইমান আলী। বিষয়টি নিয়ে আইয়ুব আলী শিক্ষক, কর্মচারী, ছাত্র-ছাত্রীসহ সচেতন অভিভাবক মহল আশাহত ও উদ্বিগ্ন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020
Design & Developed BY Rapid ICT